বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পদত্যাগ করলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী



 

ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন উদ্ধব ঠাকরে। শুধু মুখ্যমন্ত্রীর পদই নয়, এদিন বিধান পরিষদ থেকেও পদত্যাগ করেন তিনি।

চলমান রাজনৈতিক টানাপোড়েনের মধ্যেই বুধবার (২৯ জুন) রাতে ইস্তফা দেন হিন্দুত্ববাদী দল শিবসেনার নেতা। ফেসবুক লাইভে পদ ছাড়ার ঘোষণা দিয়ে দিয়ে বিদ্রোহীদের উদ্দেশ্যে বার্তাও দেন উদ্ধব ঠাকরে। এসময় তাকে বেশ আবেগী হয়ে পড়তে দেখা যায়।

বিদ্রোহী শিবির অর্থাৎ একনাথ শিণ্ডেদের উদ্দেশ্যে দেয়া বার্তায় উদ্ধব ঠাকরে বলেন, আপনাদের রাগ কার ওপর। কোনো প্রকার সমস্যা হলে আপনারা ‘মাতোশ্রী’তে আসতে পারতেন। সুরাট বা গুয়াহাটি যাওয়ার প্রয়োজন কী ছিল?
এসময় তিনি আরও বলেন, আমি ইস্তফা দিচ্ছি। আমি মহারাষ্ট্রের মানুষের আশীর্বাদ পেয়েছি। এটাই আমার জন্য অনেক।

এর আগে বুধবার সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছিলো, বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) বিধানসভায় আস্থাভোটের মাধ্যমে সংখ্যাগরিষ্ঠতার প্রমাণ দিতে হবে ‘মহা বিকাশ আগাড়ি’ সরকারকে। এদিন বেলা ১১টার সময় বিধানসভায় আস্থাভোট প্রক্রিয়া শুরু হবে, যা শেষ করতে হবে বিকেল ৫টার মধ্যে। আদালতের এই রায়ের পরেই মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন শিবসেনা নেতা উদ্ধব ঠাকরে।
এদিকে উদ্ধব ঠাকরে পদত্যাগ করার পরই রাজ্যটিতে শিবসেনার নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন জোট সরকারও পতনের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছেছে।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানা যায়, শিবসেনা কট্টর হিন্দুত্ববাদী দল হলেও কংগ্রেস আর জাতীয়তাবাদী কংগ্রেস পার্টির (এনসিপি) সঙ্গে মিলে জোট সরকার চালাচ্ছিল। তবে শিবসেনার আরেক নেতা একনাথ শিন্ডের নেতৃত্বে দলের কিছু বিধায়ক গত ২১ জুন মুখ্যমন্ত্রী ঠাকরের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেন।

বিদ্রোহী বিধায়ক ও তাদের নেতা একনাথ শিন্ডে জানান, শিবসেনার স্বাভাবিক জোট সঙ্গী ছিল বিজেপি। দল দুটির রাজনৈতিক চিন্তাভাবনাও হিন্দুত্ববাদকে কেন্দ্র করে। সর্বশেষ নির্বাচনেও তারা একসঙ্গে জোট বেঁধেই লড়েছিল। কিন্তু ক্ষমতা ভাগাভাগি নিয়ে একমত না হওয়ায় মতাদর্শগতভাবে বিরোধী মেরুর দল কংগ্রেস আর জাতীয়তাবাদী কংগ্রেস পার্টির সঙ্গে জোট বাঁধেন উদ্ধব ঠাকরে।

ধারণা করা হচ্ছে উদ্ধব ঠাকরের পদত্যাগের পর বিদ্রোহী বিধায়কদের সঙ্গ পেলে বিজেপি অনায়াসেই মহারাষ্ট্রের পরবর্তী সরকার গঠন করে ফেলবে। ইতোমধ্যে সেই প্রক্রিয়া শুরুও হয়ে গিয়েছে। বিজেপি বিধায়করা মহারষ্ট্রের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়ণবিসের বাড়িতে বৈঠকে বসেছেন।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল