মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিকাশের প্রতারনা সাথে জড়িত বিকাশেরই সাবেক কর্মকর্তা!



প্রতারকরা নানা উপায়ে বিকাশ গ্রাহকদের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনা প্রায় ঘটছে। কিন্তু এসব প্রতারণার সঙ্গে জ’ড়িতদের গ্রে’প্তার করা হলেও ধ’রা ছোঁয়ার বাহিরে থাকতেন বিকাশে কর্ম’রত কর্মক’র্তারা।

এবার তেমনি একজন প্রতারক তানভীর সিরাজী ওরফে সিজারকে (৩৮) গ্রে’প্তার করেছে পু’লিশের অ’প’রাধ ত’দন্ত বিভাগ (সিআইডি) এর সিরিয়াস ক্রা’ইম বিভাগের একটি টিম। তিনি বিকাশের সাবেক টেরিটরি ম্যানেজার হিসেবে ঢাকা, গাজীপুর, নেত্রকোনা ও কি’শোরগঞ্জে দীর্ঘ নয় বছর ধরে কর্ম’রত ছিলেন। তবে গ্রে’প্তারকৃত প্রতারক তানভীর সিরাজী সরাসরি প্রতারণার সঙ্গে জ’ড়িত না থাকলেও তিনি বিকাশের এজেন্টদের তালিকা সরবরাহ করতেন প্রতারকদের কাছে। ওই তালিকা ধরেই প্রতারকরা প্রতারণা করতেন। আর প্রতিটি তালিকার বিনিময়ে বিকাশ কর্মক’র্তা সিজার পেতেন ১৫-১২ হাজার টাকা।

বিকাশের হেড অব করপোরেট কমিউনিকেশন্স বিভাগের শামসুদ্দিন হায়দার ডালিম বলেন, ‘অ’ভিযু’ক্ত মো. তানভীর সিরাজী বিকাশের কর্মক’র্তা নন। শৃঙ্খলতাজনিত কারণে তাকে বিকাশ থেকে এ বছরের সেপ্টেম্বর মাসেই অব্যাহতি দেওয়া হয়। ত’দন্ত চলাকালীন সময়ে আইন শৃঙ্খলাবাহিনীকে শুরু থেকেই এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করেছে বিকাশ।’

আজ বুধবার (৩ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর মালিবাগস্থ সিআইডি কার্যালয়ে এক ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান সিরিয়াস ক্রা’ইম ইনভেস্টিগেশন বিভাগের বিশেষ পু’লিশ সুপার সাইদুর রহমান খান।

তিনি বলেন, বিকাশ এজেন্টের সাড়ে চার লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার একটি ঘটনায় টাঙ্গাইলের সখিপুর থা’নায় মা’মলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী। মা’মলার বাদী রাসেল ও তার পাশের দোকানদার চিত্ত রঞ্জন টাংগাইল জে’লার সখিপুর থা’নার তক্তারচালা বাজারের বিকাশ ব্যবসায়ী। তাদের বিকাশ এজেন্ট নম্বরে প্রতারকরা ফোন দিয়ে নিজেদের বিকাশ কর্মক’র্তা পরিচয়ে দিয়ে বিভিন্ন অফারের কথা বলে ওটিপি ও পিনকোড নম্বর নিয়ে মোট ৪ লাখ ৪৮ হাজার টাকা সেন্ড মানি করে হাতিয়ে নেয়। ওই মা’মলা’টি সিআইডি’র সিরিয়াস ক্রা’ইম শাখা ত’দন্তের জন্য অধিগ্রহণ করে এবং ত’দন্তকালে ঘটনার সহিত জড়িত থাকার অ’ভিযোগে বিকাশ প্রতারক চক্রের ছয় আ’সামিকে গ্রে’প্তার পূর্বক আ’দালতে সোপর্দ করা হয়। তাদের মধ্যে তিন জন আ’সামি আ’দালতে ফৌ. কা. বি. আইনের ১৬৪ ধারা মতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানব’ন্দি দেন এবং জবানব’ন্দিতে তাদের সহযোগী বিকাশ প্রতারণার কাজে বিকাশের টেরিটরি ম্যানেজার তানভীর জড়িত আছে বলে স্বীকার করেন।

তিনি আরও বলেন, আ’সামিদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে অ’ভিযান চালিয়ে মো. তানভীর সিরাজী ওরফে সিজারকে গাজীপুরের টঙ্গী এলাকা থেকে গ্রে’প্তার করা হয়। গ্রে’প্তারকৃত মো. তানভীর সিরাজী জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগ থেকে অনার্স এবং মাস্টার্স পাস করেছেন। তিনি ২০১২ সালে টেরিটরি ম্যানেজার হিসেবে বিকাশে যোগদান করেন। যোগদানের পরবর্তীতে ঢাকা, নেত্রকোনা, গাজীপুর, কি’শোরগঞ্জে কর্মকালীন সময়ে বিকাশ প্রতারকদের টাকার বিনিময়ে বিকাশ এজেন্ট নম্বর সম্বলিত শিট সরবরাহ করতেন। বিকাশ প্রতারকরা তার থেকে প্রাপ্ত এজেন্ট নম্বরের তথ্য সম্বলিত শিট এর নম্বরে ফোন দিয়ে বিকাশ কর্মক’র্তা পরিচয় দিয়ে তাদের বিভিন্ন অফারের কথা বলে ওটিপি ও পাসওয়ার্ড নিয়ে সমূদয় টাকা সেন্ডমানি করে হাতিয়ে নিতেন। তানভীর একজন বিকাশ কর্মক’র্তা হয়ে প্রতারকদের এই কাজে টাকার বিনিময়ে তথ্য সহযোগিতা করতেন বলে স্বীকার করেছে। এ ধরনের প্রতারণার সঙ্গে জড়িত অন্যান্য প্রতারকদের গ্রে’প্তারের লক্ষে সিআইডি’র অ’ভিযান অব্যাহত আছে বলে জানান তিনি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন