শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজ হাসিনা-মোদির বৈঠক: যেসব বিষয়গুলো গুরুত্ব পাচ্ছে



 

একবছরের বেশি সময় পর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে বসছেন। দুই নেতার ভার্চুয়াল বৈঠক আজ (১৭ ডিসেম্বর) বেলা ১১টায় শুরু হবে। এতে দুই প্রধানমন্ত্রী তাদের বক্তব্য দেবেন। পরে চুক্তি, এমওইউ ও প্রটোকল সই হবে। তারপর কিছু প্রকল্প যৌথভাবে উদ্বোধন করবেন তারা।

বঙ্গবন্ধুর ওপর ভারত একটি স্মারক ডাকটিকিট করেছে যা বৈঠকে প্রকাশ করা হবে। এর আগে মহাত্মা গান্ধীর ওপর স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ করেছিল বাংলাদেশ।

বৈঠকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং মহাত্মা গান্ধীর ওপর একটি অনলাইন জাদুঘর প্রদর্শন করা হবে। আগামী বছর বাংলাদেশ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করবে। ওই বছরই বাংলাদেশ ও ভারতের কূটনৈতিক সম্পর্কেরও সুবর্ণজয়ন্তী। ফলে উদযাপনে দু’দেশের যৌথ কর্মসূচিও থাকবে।

দুই প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে অন্য কয়েকটি বিষয়ে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। সমঝোতা স্মারকগুলোয় স্বাক্ষর করবেন বাংলাদেশের কর্মকর্তারা ও ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার।

যদিও দুই দেশের মধ্যে তিস্তার পানি বণ্টন, সীমান্ত সংঘাতের মতো অনেক বিষয় দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে রয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ. কে. আব্দুল মোমেন ইঙ্গিত দিয়েছেন, এই আলোচনায় দুই দেশের মধ্যের বড় বড় ইস্যুগুলো গুরুত্ব পাবে।

তিনি বলেছেন, সবকিছু নিয়েই কথা বলার সুযোগ আছে। সবগুলো নদী যাতে বিলি বণ্টন ঠিকমতো হয়, সেজন্য আমরা একটা ফ্রেমওয়ার্ক ডিজাইন করার চেষ্টা করছি। আমরা একটি কমপ্রিহেনসিভ আন্ডারস্ট্যান্ডিং করে কাজ করতে চাই, সেই প্রচেষ্টা আমাদের আছে।

এক বছরের বেশি সময় পর প্রতিবেশী দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে এই বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হচ্ছে, যদিও করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে তা হচ্ছে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদী গত বছরের ৫ অক্টোবর নয়াদিল্লিতে সর্বশেষ দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেছেন।

এই আলোচনার সময় দুই দেশের মধ্যে পাঁচটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু সেই তালিকায় নেই বহুল আলোচিত এবং বাংলাদেশের কাঙ্ক্ষিত পানি বণ্টন, সীমান্ত সমস্যার মতো বিষয়।

তবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেনের উদ্ধৃতি দিয়ে বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা বাসস জানিয়েছে, বৃহস্পতিবারের বৈঠকে দেশ দু’টির মধ্যে নয়টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হতে পারে। তবে এ ব্যাপারে এখনো কিছু চূড়ান্ত হয়নি।

এই বৈঠককালে ঢাকা পানি বণ্টন, কোভিড সহযোগিতা, সীমান্ত হত্যা, বাণিজ্য ঘাটতি, যোগাযোগ, বিদ্যুৎ ও রোহিঙ্গা সংকটসহ প্রধান সব দ্বিপক্ষীয় ইস্যু তুলে ধরবে।

এছাড়া করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সহযোগিতার বিষয়টি দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে বিশেষ গুরুত্ব পেতে পারে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এছাড়া রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘে আরও জোরালো ভূমিকা রাখার জন্য ভারতকে আহবান জানাতে পারে বাংলাদেশ।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, যে পাঁচটি বিষয়ে সমঝোতা স্বাক্ষরিত হওয়ার কথা রয়েছে, তার মধ্যে রয়েছে:

  • হাতি সংরক্ষণ
  • বরিশালে পয়ঃনিষ্কাশন প্ল্যান্ট স্থাপন
  • সামাজিক উন্নয়ন
  • হাইড্রো-কার্বন খাতে সহযোগিতা
  • কৃষিখাতে সহযোগিতা

এছাড়া ১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের পর বন্ধ হয়ে যাওয়া চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেল সংযোগটি ৫৫ বছর পর উদ্বোধন করা হবে। তবে পানি বণ্টন, সীমান্ত সংঘাতের মতো ইস্যুতে আলোচনা বা সমঝোতা না হলে এসব ইস্যু ততোটা গুরুত্ব বহন করে না বলে মনে করছেন বাংলাদেশের সাবেক পররাষ্ট্র সচিব মোঃ তৌহিদ হোসেন।