শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফ্রিডম অব দ্য সিটি অব লন্ডন সম্মাননায় ভূষিত বাংলাদেশের ব্যারিষ্টার নাজির আহমদ



 

আইনী ও কমিউনিটি সেবায় বিশেষ ও ব্যাতিক্রমী অবদান রাখার জন্য নিউহ্যাম বারার দুই টার্মের নির্বাচিত ডেপুটি স্পীকার কাউন্সিলার ব্যারিস্টার নাজির আহমদকে ফ্রিডম অব দ্য সিটি অব লন্ডন (ফ্রিম্যানশীপ) সম্মাননা দেয়া হয়। গত ২৮ জানুয়ারী লন্ডনের গিল্ডহলের চেম্বারলেইনস কোর্ট রুমে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাকে এ সম্মাননা দেয়া হয়। সম্মাননা পাওয়ার পর এক প্রতিক্রিয়ায় ব্যারিস্টার নাজির আহমদ বলেন, আমার এই সম্মাননা আমার কমিউনিটি ও নিউহ্যামের জনগনের জন্য উৎসর্গ করলাম। এই সম্মাননা নি:সন্দেহে আমাকে কমিউনিটির জন্য আরো অধিক কাজ করতে উৎসাহিত ও অনুপ্রানিত করবে।
সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন লন্ডন এসেম্বলী মেম্বার উমেশ দেশাই এএম, ইউরোপিয়ান প্রবাসী বাংলাদেশী এসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বিবিসিএ এর প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারী জেনারেল শাহনুর আহমদ খাঁন, বিশিষ্ট সাংবাদিক সাপ্তাহিক দেশ সম্পাদক তাইসির মাহমুদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী গোলাম কিবরিয়া, কমিউনিটি নেতা পারভেজ কোরেশী, বিশিষ্ট আইনজীবী ব্যারিস্টার এম এ মূয়ীদ খাঁন, সলিসিটর আবু নাইয়ুম, একাউন্টেন্ট রাব্বির হাসাইন, লিগ্যাল এডভাইসার ওয়াহিদ আলী, লিগ্যাল কনসালটেন্ট জুবায়ের আলী প্রমুখ। ১২৩৭ সাল থেকে ফ্রিডম অব দ্য সিটি অব লন্ডন (ফ্রিম্যানশীপ) সম্মাননা চালু রয়েছে। এখন পর্যন্ত যারা এ সম্মাননা লাভ করেছেন এদের মধ্যে অন্যতম ডিউক অব ক্যামব্রিজ প্রিন্স জর্জ ১৮৫৭ সালে এ সম্মান লাভ করেন। এছাড়া দক্ষিন আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট নেলসন ম্যান্ডেলা, বৃটেনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিল, বেনজামিন ডি¯্রাইলি ও মার্গারেট থ্যাচার, বৃটিশ রাজপরিবারের সদস্য প্রিন্সেস ডায়ানা, ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেল, সাবেক জার্মান চ্যান্সেলর হেলমট কোহল, সদ্য বিদায় নেয়া বৃটিশ পার্লামেন্টের স্পিকার জন বারকো, বৃটিশ চ্যান্সেলর সাজিদ জাবিদ, ইংলিশ ক্রিকেটার আ্যালিস্টার কুক, অভিনেতা এডি রেডমেইন, ডেনিয়েল লুইস, স্টীফেন ফ্রাই, মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেইট প্রমুখ।

সূত্র জানায়, বিলেত প্রবাসী ব্যারিষ্টার নাজির আহমদ বৃটেন তথা ইউরোপের সুপরিচিত মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও বিশিষ্ট্র আইনজীবী। সিলেট জেলার বিশ্বনাথ উপজেলাধীন দৌলতপুর ইউনিয়নের বাহারা দুবাগ গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তার জন্ম। ছোট বেলা থেকেই তিনি অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন। বাংলাদেশে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় মানবিক বিভাগে কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের মেধাবৃত্তি লাভ করে নব্বই দশকের গোড়ার দিকে বিলেত গমন করেন। তিনি লন্ডন ইউনিভার্সিটির কুইনমেরী থেকে এলএলবি (অনার্স) ও একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলএম ডিগ্রী অর্জন করেন। পরে বিশ্বখ্যাত লিনকন্স ইন থেকে কৃতিত্বের সাথে বার-এট-ল ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি বৃটেনের স্বনামধন্য চার্টার্ড ইনষ্টিটিউট অব্ আরবিট্রেটরস্ এর একজন ফেলো। তিনি কুইনমেরী ইউনিভার্সিটির এলোমনাই এমবেসেডর ও লন্ডন মেয়র অফিসের ইন্ডিপেন্ডেন্ট কাস্টডি ভিজিটর ছিলেন।